রাজশাহীতে দখলকৃত খাল উদ্ধার করলো উপজেলা প্রশাসন

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীর পুঠিয়ার বেলপুকুর ইউনিয়নে দীর্ঘ ২০ বছর থেকে সরকারি খাল দখল পুকুর খনন করে ও পানি প্রবাহ বন্ধ করে মাছ চাষ করে আসছিলো এলাকার প্রভাবশালী মহল। বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) বেলপুকুর ইউনিয়নের মাহেন্দ্রা কোনাপাড়া এলাকায় সেই সরকারি খাল উদ্ধার করেছে উপজেলা প্রশাসন।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, দীর্ঘ ২০ বছর থেকে ওই এলাকার প্রভাবশালী মহল পানি প্রবাহ বন্ধ করে পুকুর খনন করে মাছ চাষ করে আসছিলো। গত ৫ বছর থেকে পুকুর খননের হিড়িক পড়ে যাওয়ায় এতে সরকারি খাল দখল করে পানি প্রবাহ বন্ধ করে ওই এলাকায় ৪৫ থেকে ৫০ টি দীঘি ও পুকুর খনন করা হয়। এলাকার প্রভাবশালী মাসুদ আলী, মজিবর রহমান, ওমরসহ আরো কয়েকজন অবৈধভাবে পুকুর খনন করে পানি চলাচলের পথ চিরতরে বন্ধ করে দিয়েছে।

এতে গ্রামের কয়েকশ পরিবার কয়েক বছর থেকে বর্ষা মৌসুমে পানি বন্দি হয়ে পড়ে। বছরের কয়েক মাস তারা পানি বন্দি থাকছে। ফসলের মাঠে কোন ফসল ফলাতে পারছে না। গ্রামের শিশু বৃদ্ধরাসহ সাধারণ মানুষজন মাজা ও হাঁটুপানি উপেক্ষা করে চলাচল করছে। গ্রামের বাড়িগুলোতে পানি ওঠায় ঘরবাড়ি রান্নাঘরে ও টয়লেটগুলোতে পানি উঠে ব্যাপক দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। স্কুল শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা অভিযোগ করেন বর্ষা মৌসুমে শিক্ষার্থীদের কোলে করে বা ঘাড়ে করে অভিভাবকরা স্কুলে নিয়ে যান।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে নয়টায় পুঠিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার নুরুল হাই মোহাম্মদ আনাস ও সহকারি কমিশনার (ভূমি) রোমানা আফরোজ অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে। শ্রমিকসহ এলাকাবাসী কোদাল বিপ্লব শুরু করে পুকুরের পাড় কেটে দেয়। এলাকাবাসী এসে পানি প্রবাহ ঠিক করার জন্য আনন্দ প্রকাশ করে প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানায়। তবে আরও কয়েকটি পাড় কাটলে সরকারি খালের পানি প্রবাহ ঠিক থাকবে। এলাকার কৃষি পন্য ও মানুষের ঘরবাড়ি রক্ষা পাবে।

এ বিষয়ে অভিযুক্তদের ফোনে যোগাযোগ করলে তারা এ বিষয়ে কোন কথা বলতে রাজি হয়নি।

পুঠিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার নুরুল হাই মোহাম্মদ আনাস জানান, দীর্ঘদিন থেকে এই এলাকায় প্রভাবশালী মহল অবৈধভাবে সরকারি খাল বন্ধ করে পুকুর খনন করে আসছে। এতে এলাকায় কৃষকরা ফসল উৎপাদন করতে পারছে না, বর্ষায় কয়েকশ পরিবার পানি বন্দি থাকছে। ছোট ছোট বাচ্চারা অভিযোগ করছে তারা পানি বন্দি থাকে তাদের অভিভাবকরা কোলে করে তাদের স্কুলে নিয়ে যায় সবাই পানি বন্দি থাকে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যহত হচ্ছে। অভিযোগের ভিত্তিতে এখানে অভিযান পরিচালনা করে খাল কেটে দেওয়া হচ্ছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button